অ্যান্ড্রয়েড টিভি - স্মার্ট টিভি কেনার আগে

পুজো এসেই গিয়েছে। বাতাসেসেই খবর বারেবারেই ঘোষিত।পুজোপ্যান্ডেলের কাজও প্রায় শেষের দিকে। এদিকে আপামর বাঙালিও এই প্রাণের উৎসবে ঘরে নতুন কিছু আনারবাসনা পূর্ণ করার জন্য মুখিয়ে রয়েছেন। এ দোকান ও দোকান ঘুরছেন। দরদস্তুর করছেন।আবার কেউ কেউ কিনেও ফেলছেন। তবে বাড়ির নতুন সদস্যকে ঘরে আনার ক্ষেত্রে একটু বাছবিচার তো করতেই হবে। আর এর সঙ্গেই রয়েছে সারা পৃথিবীকে ঘর-বন্দি করার একটা ইচ্ছা। যেটা হবে একেবারে আর পাঁচ জনের থেকে আলাদা।

ধর্মতলা, উল্টোডাঙা, গড়িয়া, সোনারপুর, হাওড়া,বেহালা, বালি— সব দোকানেই এই একটি জিনিসের চাহিদা তুঙ্গে। এবছর বিক্রির নিরিখে ৩২ ইঞ্চির সম্পূর্ণ এইচ ডি/এল ই ডি টেলিভিশনের চাহিদা সব থেকে বেশি। এরপরে ৪০ ইঞ্চি, তারপরে ২৪ ইঞ্চি। সাবেকি টেলিভিশন সেট বদলে মানুষ প্লাজমা অথবা এলসিডি ডিসপ্লের থেকে এলইডি ডিসপ্লে-র দিকেই ঝুঁকছেন বেশি। সম্পূর্ণ এইচডি আর যে টেলিভিশনে পেনড্রাইভ লাগানো যায়অর্থাত্ইউএসবিপোর্টব্যবহারকরাযায়—তেমনটাই চাইছেন।

ইলেক্ট্রনিক্স পণ্যের দোকানগুলির বিক্রেতারা সবাই অবশ্য একটি কথাই শুনিয়েছেন, মানুষ সেই পুরনো ধারণা থেকে আজও বেরোতে পারেনি। চকচকে ছবি, ঝকঝকে রংআর হোম থিয়েটারের সাউন্ড। তারা অবশ্য এও বলছেন,যে কোনও একটি টেলিভিশনে একসঙ্গে এর সব ক’টি পাওয়া সম্ভব নয়। যদিও সাম্প্রতিক কালের বেশ কিছু স্মার্ট টেলিভিশন সেটে ডলবি ডিজিটাল সাউন্ড জুড়ে দিয়েছেন নির্মাতারা। তা সবই ওই বাজারের দিকে তাকিয়েই।

এবারের পুজোর বাজারকে মাথায় রেখে সব থেকে বেশি বিক্রির ব্র্যান্ডগুলি বেশ কিছু নতুন সম্ভার এনেছে। বাজারে এসেছে অ্যানড্রয়েড টেলিভিশন। ৬৯ হাজার টাকা থেকে শুরু।শেষ ৩ লাখ ৮৪ হাজারে গিয়ে। স্মার্ট ফোনের যাবতীয় মজা এতে পাবেন। রিমোটের ঝঞ্ঝাট থেকে মুক্ত।ছবি আর শব্দের কথা নাই বা বললাম! ১০৮ সেন্টিমিটার থেকে ১৬৪ সেন্টিমিটার পর্যন্ত পাওয়া যাচ্ছে।

আর একটি টেলিভিশন সেট-এর কথা বলি। ফোর-কে টেলিভিশন। নির্মাতারা বলছেন, এখন আমরা একটি ফুল এইচডি টেলিভিশনে যে ছবি দেখি তার থেকে চার গুণ বেশি ঝকঝকে ছবি দেখব। কারণটা আর কিছুই নয় এর পিক্সেল টা ৪০০০ x ২০০০।একটি সাধারণ ফুল এইচ ডি টেলিভিশনে থাকে ১০৮০ পিক্সেল।এখন সব নির্মাতারা ফোর-কে টেলিভিশনের দিকেই ঝুঁকছে।

টেলিভিশন দূনিয়ায় একটি নতুন সংযোজন আলট্রা এইচডি।এই আলট্রা এইচডি আপনার কাছের মাল্টিপ্লেক্সে সিনেমায় দেখা ছবি ও শব্দের মজা দিতে পারে।একটা মাল্টিপ্লেক্সে ছবির রেজোলিউশন থাকে ৪০৯৬x ২১৬০।আর এই আলট্রা ভিসন এইচডি-তে থাকে ৩৮৪০ x ২১৬০ পিক্সেল।এই পিক্সেল-ই ছবির নিখুঁত ভাবটি ফুটিয়ে তোলে। নির্মাতাদের মতে, আগামী দু’তিন বছরের মধ্যেই টেলিভিশন জগতের দখল ফোর-কে টেকনোলজি নিয়ে নেবে।



একটু দেখে নেওয়া যাক আজকের আধুনিক টেলিভিশন সেটে কী কী সংযোজন ঘটল।

১। ছবির ক্ষেত্রে: ফোর-কে
২। শব্দের ক্ষেত্রে: ডলবি ডিজিটাল, কিছু টেলিভিশন সেটে ব্যবহার করা হয়েছে ম্যাগনেটিক ফ্লুয়িড স্পিকার।
৩। কিছু টেলিভিশন নির্মাতা টেলিভিশনে ওয়্যারলেস ইন্টারনেট পরিষেবা ব্যবহার করার সুবিধা জুড়েছেন।যার ফলে আপনি ইউটিউব থেকে বেশ কিছু চ্যানেল বিনা পয়সায় দেখার সুযোগ পাবেন।

এ বার দেখে নেওয়া যাক প্রথম সারির সবচেয়ে বেশি বিক্রি কিছু ব্র্যান্ড।

সোনি, স্যামসাং, এলজি, প্যানাসনিক, প্যানোরমা, রি কানেক্ট, তোসিবা, ভিডিওকন, মাইক্রোম্যাক্স, ফিলিপ্‌স, ওনিডা।

কেনার টিপস:

১। প্রথমে কী ডিসপ্লে নেবেন সেটা ঠিক করুন (প্লাজমা, এলসিডি, এলইডি)এবং দোকানে গিয়ে পছন্দের ছবির গুণমান দেখুন।
২। ছবির কন্ট্রাস্ট দেখুন।
৩। ছবির রঙের গভীরতা দেখুন।
৪। ছবিটি পুরোপুরি দেখা যাচ্ছে কি না, সেটাও অন্য সেট-এর সঙ্গে তুলনা করে দেখুন।
৫। কতটা পাওয়ার শেভ করে সেটা দেখুন।
৬। বিক্রির পরবর্তী সময়ে পরিষেবা কেমন সেটা জানুন।
৭। নিজে সহজে টেলিভিশন সেটটি চালাতে পারছেন কি না দেখে নিন।
৯। টেলিভিশন সেটটির দিকে কিছু ক্ষণ তাকিয়ে থাকুন, দেখুন ওই সেটটি চোখকে কোনও রকম পীড়া দিচ্ছে কি না।
১০। টেলিভিশন সেটটির গায়ে লাগানো স্টার রেটিং দেখে নিন।