লাজুক স্বভাবের ছেলেদের ডেটিং টিপস

অনেকেই আছে অনেক চাপা স্বভাবের। মুখচোরা, লাজুক। খুব বেশি কথা বলতে পারেন না এ ধরণের মানুষেরা। তাই প্রেম করতে গিয়ে পড়েন আরও বেশি বিপদে। সামনা সামনি দেখা হলে যেন নার্ভাসনেসে কথাই বলতে পারেন না। এমন চুপচাপ বসে থাকা ধরনের মানুষের সাথে কে প্রেম করতে চাইবে বলুন! কিন্তু তাই বলে কি লাজুক ও চাপা স্বভাবের মানুষ প্রেম করবেন না? অবশ্যই করবেন, তবে তাদেরকে মেনে চলতে হবে কিছু নিয়ম।

১. প্লেইসিং: এমন যায়গায় প্লেস ফিক্স করুন যেন পয়সা কম খরচ হয়। যেমন কোনো সস্তা কিন্তু অভিজাত রেস্টুরেন্ট। ধানমন্ডিতে এমন কিছু খাওয়ার যায়গা আছে (যেমন স্টার, এরাবিয়ান, সিপি)। পার্কে টার্কে যেতে পারেন। তবে সেখানে পরিচিত লোকের হাতে ধরা খাওয়ার ভয় আছে।

২. টাইমিং: ১০ মিনিট আগে পরে যেতে পারেন। তবে মেয়েদের বসিয়ে রাখা উচিত নয়। এতে মেয়েরা রাগ করে। বেশি এক্সাইটেড হলে অনেক আগেও যেতে পারেন। তবে জিজ্ঞেস করলে বলবেন যে এইতো একটু আগে এসেছি (অবস্য আমার বদ অভ্যাস মেয়েদের বসিয়া রাখা )। তবে বেশি দেরি করবেননা। ট্রাস্ট মি মেয়েরা ব্যাপক রেগে যায়। বাসে গেলে যেহেতু বংগদেশ, কোনো ঠিক ঠিকানা নেই, হাতে সময় নিয়ে বের হবেন। একেবারে ইলিভেন্থ আওয়ারে বের হবার চিন্তাও করবেননা। যত টাইম লাগার কথা যেতে তার চেয়ে আধা ঘন্টা বা ৪৫ মিনিট বেশি হাতে সময় নিয়ে বের হন।

৩. ক্লদিং: সাধারনত যা পড়লে আপনাকে দেখতে সুন্দর লাগে সেটা পড়ুন। আপনাকে হয়তো T-Shirt এর সুন্দর লাগে কিন্তু শার্টে ভালোনা। সেক্ষেত্রে T-Shirt পরবেন। শার্টে সুন্দর লাগলে শার্টে। আমার জানামতে মেয়েরা নীল রংয়ের প্রতি আকৃস্ট। হালকা কিংবা গাড় নীল রংয়ের পোষাক পড়তে পারেন।

৪. শেভিং: শেভ করা উচিত আমার মতে। তবে আজকালকার মেয়েরা দেখি খোচা খোচা দাড়ি আলা পাবলিকে প্রতি আকৃষ্ট। আপনি গায়ের রং যদি উজ্জল হয় তবে খোচা দাড়ি রাখা যেতে পারে। কালচে হলে না রাখাই ভালো। এতে আরে কালো দেখায়।

৫. পূর্ব প্রস্তুতি: এক মাস আগে থেকে ফেয়ার এন্ড হ্যান্ডসাম মাখতে পারেন। যদি কিছুটা উজ্জল হন আরকি। নট নেসেসারি।

৬. চুলঃ যে স্টাইলে আপনাকে ভালো লাগে সেই স্টাইলটা মারুন। তবে সাধারন ভাবেও রাখতে পারেন যে স্টাইলটা দিয়ে আপনাকে চেনা যায়। কিছু মেয়েরা লাইক করে জেল দেয়া চুল।

৭. আইয়িং: যার সংগে ডেটিং এ গেসেন তার দিনে নজর রাখুন। অন্য মেয়ের দিকেও তাকালে ১ সেকেন্ডের জন্য। আর মেয়ের চেহারায় নজর রাখুন। চোখ আই লেভেল থেকে নিচে নামাবেন না। মেয়েরা অন্য কিছু মনে করতে পারে।

৫. খাওয়া: ম্যানার মানুন। আমার মত গপাগপ ম্যানারের তোয়াক্কা না করে খাবেননা। তবে আপনি যদি অলশ হন তবে যতটুক পারুন ভদ্রতা বজায় রাখুন। চিকেন অর্ডার করা উচিত না আমার মতে। কারন মানুষকে অদ্ভুত লাগে হাত দিয়ে ধরে চিকেন খাওয়ার সময়। আর মানুষ একটু বিব্রত বোধ করে। ছুড়ি-চামুচ দিয়ে খাওয়া যায় এমন কিছু অর্ডার করুন। পিৎজা মন্দ হয়না। খরচ ও কম।

৬. কথাবার্তাঃ কথাবার্তা স্মার্টলি বলুন। আমার মত চুপ করে বসে থাকবেননা বা আটকিয়ে আটকিয়ে কথা বলবেন না। আপনাদের দুজনেরই ইন্টারেস্ট আছে এমন কোনো বিষয় নিয়ে কথা বলুন। জোক বলতে পারেন। তবে ডার্টি জোক বলবেননা। সব সময় ডার্টি জোক মানায়না। জোক বলার সময় আবার এমন জোক বইলেন যেন আনকমন হয় আর হাসির। আবার মিঃ বিন হয়ে যাবেন না হাসাতে গিয়ে। আগে থেকেই ঠিক করে নিন কোন বিষয় নিয়ে কথা বলবেনা। কয়েকটা টপিক নির্বাচন করে নিন মনে মনে।

৭. এগিয়ে দেয়াঃ চলে যাবার সময় যতদুর পারেন এগিয়ে দিন।

জেনে নিন চাপা স্বভাবের মানুষদের জন্য কিছু ডেটিং টিপস।


অনলাইন ডেটিং এর সাহায্য নিন

আপনি যদি চাপা স্বভাবের হয়ে থাকেন তাহলে আপনার জন্য অনলাইন ডেটিং একটি সহজ মাধ্যম। প্রিয় মানুষটির সাথে সামনা সামনি বসে কথা বলা আপনার জন্য কঠিন হলেও লিখে কথা বলার ক্ষমতা কম বেশি সবারই আছে। তাই প্রেমের শুরুর দিকে অনলাইনেই বেশি কথা বলার চেষ্টা করুন। তাহলে অনলাইনে গল্প করতে করতে ধীরে ধীরে সম্পর্কটা সহজ হয়ে যাবে। তখন সামনা সামনিও কথা বলতে তেমন সমস্যা হবে না।

বন্ধুদের সাহায্য নিন

আপনার যদি আপনার প্রিয় মানুষটির সাথে প্রথমে সহজ হতে সমস্যা হয় তাহলে আপনার সাথে আপনার কয়েকজন বন্ধুকে রাখুন। প্রিয় মানুষটিকেও বলতে পারেন তাঁর বন্ধুদের নিয়ে আসতে। তাহলে বন্ধুদের আড্ডায় আপনি অনেকটাই সহজ হয়ে যাবেন প্রিয় মানুষটির সাথে।

নিজেকে আয়নার সামনে উপস্থাপন করুন

প্রিয় মানুষটির সামনে নিজেকে কিভাবে উপস্থাপন করবেন সেটা আয়নায় আগে দেখে নিন। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজেকে নিজে উপস্থাপন করুন। তাহলে আপনি বুঝতে পারবেন আপনার কিভাবে নিজেকে উপস্থাপন করতে হবে, কীভাবে কথা বললে আপনাকে আত্মবিশ্বাসী দেখাবে।

সঠিক ডেটিং এর স্থান নির্বাচন

চাপা স্বভাবে মানুষদের ডেটিং এর স্থান নির্বাচনের ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। কোনো মিউজিক ক্যাফে যেখানে লাইভ গান শোনা যায়, সুন্দর গান ছাড়া হয় এমন স্থান এধরণের মানুষদের ডেটিং এর জন্য একেবারে পারফেক্ট। কারণ এসব স্থানে আপনি কথা কম বললেও বিরক্ত হবেন না আপনার সঙ্গী। এছাড়াও সিনেমা হলে গেলেও ভালো করেই কেটে যাবে সময়টা।

মন দিয়ে শুনুন

আপনি যেহেতু কম কথা বলেন সেহেতু আপনার সঙ্গীর কথা মন দিয়ে শুনুন। আপনার সঙ্গীর কথা মন দিয়ে শুনলে সে কথা বলার আগ্রহ পাবে এবং তখন আপনি তেমন কথা না বলতে পারলেও সে আপনার সাথে কথা চালিয়ে যেতে পারবে। তাই সঙ্গীর কথা মন দিয়ে শুনুন এবং বেশি কথা বলার চেষ্টা করতে গিয়ে ফালতু কথা বলে ফেলবেন না ভুলেও।

লজ্জা নারীর ভূষণ হলেও পৃথিবীতে লাজুক বা মুখচোরা ছেলে কিন্তু একেবারেই কম নেই। বরং অল্প বয়সে মেয়েদের সাথে কথা বলতে বা মিশতে গেলে বেশিরভাগ ছেলেই খুব নার্ভাস অনুভব করেন। চোখে চোখ রেখে কথা বলতে না পারা, এলোমেলো কথা বলে ফেলা, হাত পা কাঁপা, ঘন ঘন ঘামতে থাকা ইত্যাদি অনেক রকম উপসর্গই দেখা দেয় অনেকের মাঝে। ফলে একজন প্রেমিকা খুঁজে পাওয়া যেন রীতিমত কঠিন একটি কাজে পরিণত হয়। অনেকে তো মেয়ে বন্ধুও তৈরি করতে পারেন না।

এমনই লাজুক ও নার্ভাস ধরণের ছেলেদের জন্য প্রেম করার ৭টি কার্যকরী টিপস


১) মেয়েদের সাথে বাস্তবে কথা বলতে গেলে খুবই নার্ভাস লাগে? বুঝে পান না যে কী কথা বলবেন আর কীভাবে বলবেন? বাস্তবে কথা বলার দরকার নেই, বন্ধুত্ব পাতিয়ে ফেলুন ইন্টারনেটে। গল্প করুন, আড্ডা দিন, যা যা বলতে ইচ্ছা করে বলুন। এটা ইন্টারনেট, তিনি আপনাকে খেয়ে ফেলবেন না। চ্যাট থেকে আস্তে আস্তে ভিডিও চ্যাটে যান, এতে জড়তা কাটবে। তারপর না হয় মুখোমুখি দেখা করুন।

২) নিজের চেহারা ও লুকের দিকে বাড়তি মনযোগ দিন। নিজেকে পোশাক-আশাক ও চলন বলনে স্মার্ট করে তুলুন। যত স্মার্ট হয়ে উঠবেন, লাজুক ও নার্ভাস ভাবটি তত কমে যাবে।

৩) আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজে নিজে কথা বলে অভ্যাস করুন। ধরে নেবেন যে সামনে একজন নারী আছেন কিংবা আপনার পছন্দের মেয়েটি। তাঁকে কল্পনা করে বারবার রিহারসেল করুন যে কী বলবেন আর কীভাবে বলবেন।

৪) মেয়েদের সামনে গেলে মাথা এলোমেলো হয়ে যায়? কিছুই ঠিকমত বলতে পারেন না? মনের কথা সুন্দর করে বলার জন্য আশ্রয় নিন চিঠি বা ই-মেইলের।

৫) ডেটিং করতে গেলে খুবই নার্ভাস লাগে? যেহেতু আপনি মুখচোরা ধরণের, সেহেতু এমন জায়গায় ডেটিং করতে যান যেখানে মানুষ কম। একটা ছিমছাম রেস্তরাঁয় মুখোমুখি দুজনে বসলে বেশ লাগবে।

৬) তার সামনে গেলেই নার্ভাস হয়ে যান, জড়সড় হয়ে যান, কথা খুঁজে পান না বলার মতন? ডেটিং করতে গিয়ে তাঁকে বলতে দিন। মেয়েরা এমনিতেই কথা বলতে বেশ ভালোবাসে। বলতে না পারলে একজন ভালো স্রতা হয়ে উঠুন। তাঁকে তাঁর জীবনের ব্যাপারে প্রশ্ন করতে পারেন। তাঁর কথার জের ধরে নানা রকম প্রশংসা সূচক কথাও বলতে পারেন।

৭) দেখা হলে বুঝে পান না কীভাবে কথা শুরু করবেন? খুব সাধারণ একটি কথা বলুন- তোমাকে আজ খুব সুন্দর লাগছে বা এই পোশাকটি তোমাকে খুব মানিয়েছে। এই ধরণের প্রশংসায় যে কোন নারীরই মন দ্রবীভূত হয়ে যাবে। তাঁকে খুশি করার জন্য আপনাকে খুবই বেশি চেষ্টা করতে হবে না।